জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৫তম জন্মজয়ন্তী

নজরুল আমাদের বাঙালিকে আত্নবলে বলীয়ান হতে বলেছেন মন্তব্য করে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. সৌমিত্র শেখর বলেছেন, নজরুল আমাদের সমস্তকিছু ভ্রুকুটিকে উপেক্ষা করে এগিয়ে যাওয়ার প্রেরণা দিয়েছেন। এই প্রেরণার কবি অনেক গান লিখেছেন। তাঁর ছোটগল্প, উপন্যাস, প্রবন্ধ ইত্যাদি রয়েছে কিন্তু তিনি যে জীবন দর্শন দিয়ে গেছেন এই জীবন দর্শন হচ্ছে আজকে আমাদের চালিকাশক্তি। তিনি আমাদের জাতীয় কবিই শুধু নন, তিনি আমাদের আদর্শের ধ্রুব তারকা।
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৫তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষ্যে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক আয়োজিত দুইদিনব্যাপী কর্মসূচির প্রথম দিন শনিবার (২৫ মে) সকালে গাহি সাম্যের গান মঞ্চে আয়োজিত উদ্বোধনী অধিবেশনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
উদ্বোধনী সভায় সভাপতিত্ব করেন ট্রেজারার ও উপাচার্য (রুটিন দায়িত্ব) প্রফেসর ড. আতাউর রহমান। সুদূর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে অনলাইনে যুক্ত হয়ে সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. সৌমিত্র শেখর। ‘মুক্তধারা ফাউন্ডেশনের’ আমন্ত্রণে ১২৫তম নজরুল জন্মজয়ন্তী এবং বাংলা বইমেলা ২০২৪ এ অংশগ্রহণের জন্য মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. সৌমিত্র শেখর বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন। যেহেতু তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছেন, সেহেতু তিনি নজরুলের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সংযোগ ও সম্পর্ক বিষয়ে আলোচনা করেন এবং শ্রোতৃমন্ডলী আগ্রহ সহকারে সে আলোচনা উপভোগ করেন।
সভায় বক্তব্যের শুরুতেই উপাচার্য জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, পঁচাত্তরে নিহত সকল শহীদ, ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধে সকল শহীদদের স্মরণ করেন। জাতীয় কবি নজরুলের প্রতি তাঁর বিন¤্র শ্রদ্ধাজ্ঞাপনও করেন।
সবাইকে নজরুল দর্শন চর্চার তাগিদ দিয়ে প্রফেসর ড. সৌমিত্র শেখর বলেন, আসুন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রাতিষ্ঠানিকভাবে ও আমরা যে যেখানে আছি ব্যক্তিগত পর্যায়ে কাজী নজরুল ইসলামের জীবনাদর্শ অনুসরণ করে এগিয়ে যাই। তাহলেই আমরা আমাদের অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছুতে পারবো।
উপাচার্য তাঁর বক্তব্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কবি ওয়াল্ট হুইটম্যানের সঙ্গে কাজী নজরুল ইসলামের জীবনের বিভিন্ন সাদৃশ্যর কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, মার্কিন কবি ওয়াল্ট হুইটম্যানের কবিতা নজরুল নিজে পড়েছেন। এবং হুইটম্যানে কথা তাঁর প্রবন্ধে লিখেছেন। লক্ষ্য করলে দেখা যাবে যে, নজরুলের একটি প্রবন্ধ আছে বর্তমান বিশ্ব সাহিত্য। এ প্রবন্ধে হুইটম্যানের কথা তিনি নিজে উল্লেখ করেছেন। মূলত মার্কিন কবি হুইটম্যান ও বাঙালি নজরুল ইসলাম তাদের জীবনের বেশকিছু মিল আছে। ব্যাপারটি খানিকটা কাকতালীয়। তারা দুজনেই জীবন শুরু করেছিলেন কঠিন সংগ্রামের মধ্যদিয়ে।
সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. নজরুল ইসলাম, কলা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মুশাররাত শবনম, বিজ্ঞান ও প্রকৌশল অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. উজ্জ্বল কুমার প্রধান, ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. রিয়াদ হাসান ও চারুকলা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. তপন কুমার সরকার। স্বাগত বক্তব্য দেন রেজিস্ট্রার কৃষিবিদ ড. মো. হুমায়ুন কবীর। সঞ্চালনা করেন নাট্যকলা ও পরিবেশনা বিদ্যা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাজহারুল হোসেন তোকদার ও নৃবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জান্নাতুল নাঈম। এসময় বিভিন্ন বিভাগ ও দপ্তরের প্রধানবৃন্দ, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী, ছাত্রছাত্রীসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।
দিবসটি উপলক্ষ্যে দুপুরে প্রশাসনিক ভবনের তৃতীয় তলায় কনফারেন্স কক্ষে অনুষ্ঠিত হয় সেমিনার। বিশিষ্ট চলচ্চিত্র ও নজরুল গবেষক অনুপম হায়াতের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ইমন সালাউদ্দিন ও নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আসিফ ইকবাল আরিফ। প্রবন্ধ নিয়ে আলোচনা করেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রফেসর ড. অনিরুদ্ধ কাহালি ও নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. মো. নজরুল ইসলাম। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন রেজিস্ট্রার কৃষিবিদ ড. মো. হুমায়ুন কবীর। স্বাগত বক্তব্য দেন সেমিনার উপ-কমিটির সভাপতি প্রফেসর ড. মো. মাহবুব হোসেন। উদ্বোধনী সভায় গাহি সাম্যের গান স্মরণিকার চতুর্দশ সংখ্যার মোড়ক উন্মোচন করেন অতিথিরা।
এরআগে দিবসটি উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু ভাস্কর্য ও নজরুল ভাস্কর্যে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার ও উপাচার্য (রুটিন দায়িত্ব) প্রফেসর ড. আতাউর রহমানের নেতৃত্বে পুষ্পস্তবক অর্পণ কর্মসূচিতে বিভিন্ন অনুষদের ডিন, রেজিস্ট্রার, বিভাগ ও দপ্তরপ্রধানগণ, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী, ছাত্রছাত্রী ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নেতা-কর্মীরা এসময় উপস্থিত ছিলেন। দিবসটি উপলক্ষ্যে সাংস্কৃতিক পর্বে সন্ধ্যা ছয়টায় বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা অংশ নেন। নজরুলের কবিতা পাঠ করে ‘শব্দকুঞ্জ’। এছাড়া সঙ্গীত বিভাগ থেকে নজরুল সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। রবীন্দ্র ও নজরুল জন্মজয়ন্তী উপলক্ষ্যে গাহি সাম্যের গান মঞ্চের পাশে তিনদিনব্যাপী বইমেলা শুরু হয়েছে।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৬৩তম জন্মজয়ন্তী

একগুচ্ছ কর্মসূচি ও আয়োজনের মধ্যদিয়ে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৬৩তম জন্মজয়ন্তী জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে পালন করা হয়েছে। জন্মজয়ন্তী উপলক্ষ্যে শুক্রবার (২৪ মে) বিকেল তিনটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের কনফারেন্স কক্ষে আয়োজিত হয় আলোচনা সভা।
সভায় সভাপতিত্ব করেন ট্রেজারার ও উপাচার্য (রুটিন দায়িত্ব) প্রফেসর ড. আতাউর রহমান। সুদূর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে অনলাইনে যুক্ত হয়ে সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. সৌমিত্র শেখর। ‘মুক্তধারা ফাউন্ডেশনের’ আমন্ত্রণে ১২৫তম নজরুল জন্মজয়ন্তী এবং বাংলা বইমেলা ২০২৪ এ অংশগ্রহণের জন্য মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. সৌমিত্র শেখর বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন। যেহেতু তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছেন, সেহেতু তিনি রবীন্দ্রনাথের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সংযোগ ও সম্পর্ক বিষয়ে আলোচনা করেন এবং শ্রোতৃমন্ডলী আগ্রহ সহকারে সে আলোচনা উপভোগ করেন।
সেমিনারে বক্তব্যের শুরুতেই উপাচার্য জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, পঁচাত্তরে নিহত সকল শহীদ, ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধে সকল শহীদদের স্মরণ করেন। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের প্রতি তাঁর বিন¤্র শ্রদ্ধাজ্ঞাপনও করেন।
উপাচার্য তাঁর বক্তব্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গড়ে ওঠা অ¤ø-মধুর সম্পর্কের নানা দিক আলোকপাত করেন। পুত্র রথীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কৃষিতত্তে¡ পড়াশুনা করার জন্য পাঠানো থেকে শুরু করে রবীন্দ্রনাথের পাঁচবার মার্কিন ভ্রমণ মাননীয় উপাচার্যের বক্তৃতায় উঠে আসে। এসময় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রবীন্দ্রনাথের একাধিক সফরের নানাদিক, রবীন্দ্রনাথের বক্তৃতা ও চিত্রপ্রদর্শনী নিয়ে তথ্যবহুল আলোচনা করেন তিনি। মার্কিনীদের থেকে প্রাপ্ত সম্মানের পাশাপাশি প্রত্যখ্যাত হওয়া রবীন্দ্রনাথের কর্ম ও প্রতিক্রিয়া বিস্তারিতভাবে তুলে ধরেন মাননীয় উপাচার্য।
তিনি বলেন, রবীন্দ্রনাথ তাঁর সময়ের মার্কিন সা¤্রাজ্যবাদের বিরূপতার উত্তর দিতে পেরেছিলেন। মূলত বাঙালির যে অহংবোধ, সেখানে যদি কেউ আঘাত করে তার কিন্তু প্রত্যাঘাত হয়। অতএব আঘাত করার মানসিকতা থেকে দূরে সরে যেতে হবে।
বিশ্বে অশান্তি ও অমানবিকতার দৃষ্টান্ত দিয়ে মাননীয় উপাচার্য বলেন, রবীন্দ্র দর্শনের মূলকথা বিশ্বশান্তি এবং তা প্রতিষ্ঠা। ‘দেবে আর নেবে, মিলাবে মিলিবে, যাবে না ফিরে’–এটাই রবীন্দ্রনাথের বাণী। আসুন, আজকে সবাই রবীন্দ্রনাথের এই বাণী দিয়ে দুহাত স¤প্রসারিত করি। বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হোক।
সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন কলা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মুশাররাত শবনম। গানের সুরের মধ্য দিয়ে ‘রবীন্দ্রনাথের গান: কথা ও সুর’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিশিষ্ট রবীন্দ্র সঙ্গীতশিল্পী সাজেদ আকবর। গানের সুরে ও কথায় বক্তব্য দেন বিশিষ্ট রবীন্দ্র সঙ্গীতশিল্পী সালমা আকবর। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন রেজিস্ট্রার কৃষিবিদ ড. মো. হুমায়ুন কবীর। স্বাগত বক্তব্য দেন সেমিনার উপ-কমিটির আহŸায়ক প্রফেসর ড. মো. মাহবুব হোসেন। সঞ্চালনা করেন ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের বিভাগীয় প্রধান রায়হানা আক্তার ও অগ্নি-বীণা হলের প্রাধ্যক্ষ হীরক মুশফিক। এসময় বিভিন্ন বিভাগ ও দপ্তরের প্রধানবৃন্দ, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী, ছাত্রছাত্রীসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।
দিবসটি উপলক্ষ্যে সাংস্কৃতিক পর্বে সন্ধ্যা ছয়টায় গাহি সাম্যের গান মঞ্চে হয় সাহিত্য-বিতর্ক। বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিবেটিং সোসাইটি এতে অংশ নেন। এরপর রবীন্দ্র সঙ্গীত পরিবেশন করে সঙ্গীত বিভাগ। এছাড়া সঙ্গীত বিভাগ ও ডান্স ক্লাবের পরিবেশনায় নৃত্যনাট্য ‘শ্যামা’ পরিবেশিত হয়। রবীন্দ্র ও নজরুল জন্মজয়ন্তী উপলক্ষ্যে গাহি সাম্যের গান মঞ্চের পাশে তিনদিনব্যাপী বইমেলা শুরু হয়েছে।
উল্লেখ্য, এর আগে গত বুধবার (০৮ মে) সকালে কবিগুরুর ১৬৩তম জন্মজয়ন্তীতে মাননীয় উপাচার্যের কার্যালয়ে তাঁর প্রতিকৃতিতে পুষ্পাঞ্জলি দেওয়া হয়। উপাচার্য প্রফেসর ড. সৌমিত্র শেখরসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর ড. আতাউর রহমান, কলা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মুশাররাত শবনম, রেজিস্ট্রার কৃষিবিদ ড. মো. হুমায়ুন কবীর, প্রক্টর সঞ্জয় কুমার মুখার্জীসহ অন্যরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।